Breaking News
Loading...
Home / সাম্প্রতিক খবর / ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু: লণ্ডভণ্ড উপকূল, নিহত ১৯ বিস্তারিত……

ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু: লণ্ডভণ্ড উপকূল, নিহত ১৯ বিস্তারিত……

ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু’র প্রভাবে দেশের উপকূলের বিভিন্ন এলাকায় প্রচণ্ড বাতাস বইছে। চট্টগ্রাম, মংলা, পায়রা সমুদ্রবন্দর ও কক্সবাজার উপকূলীয় এলাকাসহ দেশের সব রুটে নৌযান চলাচল বন্ধ রয়েছে।

এদিকে চট্টগ্রাম, ভোলা, লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালী, কক্সবাজার ও পটুয়াখালীতে ১৯ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

চট্টগ্রাম: ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুর প্রভাবে চট্টগ্রামে সকাল থেকেই টানা বৃষ্টি হচ্ছে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে ঝড়ো হাওয়ার সাথে সমুদ্র উত্তাল হতে শুরু করে। বড় বড় ঢেউ এসে তীরে আছড়ে পড়েছে। আনোয়ারা, বাঁশখালীসহ বেশ কয়েকটি উপকূলীয় এলাকা ৪ থেকে ৫ ফুট পানিতে তলিয়ে গেছে। পানিতে ডুবে গেছে বিভিন্ন ঘরবাড়ি। ঘূর্ণিঝড়ের কারণে চট্টগ্রাম বন্দরের পণ্য উঠানামাসহ সব ধরণের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, বেলা সাড়ে ১২টার দিকে রোয়ানু চট্টগ্রামের উপর দিয়ে বয়ে যায়। এদিকে, সীতাকুণ্ডের সলিমপুরে পাহাড় ধসে দু’জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

এদিকে চট্টগ্রামে ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুর কারণে সৃষ্ট ভারী বর্ষণে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের সলিমপুরে পাহাড় ধস নামে। এসময় পাহাড়ের পাদদেশের বেশ কিছু বাড়িঘরের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে

n

ভোলা: ঘূর্ণিঝড়ের সময় দমকা হাওয়ায় ভোলার তজুমদ্দিন উপজেলাসহ অন্তত ৩ কিলোমিটার এলাকা লণ্ডভণ্ড হয়ে পড়েছে। ঝড়ে ৬ শতাধিক বাড়িঘর ও দোকানপাট বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। ঝড়ে ঘরের নীচে চাপা পড়ে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এসময় আহত হয়েছেন শতাধিক মানুষ। জনজীবনে নেমে এসেছে স্থবিরতা। এছাড়া মেঘনা নদীতে ডুবে গেছে বালুভর্তি দু’টি কার্গো জাহাজ।

বরগুনা: বরগুনায় সকাল ৯টা থেকে সাড়ে দশটার মধ্যে ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু অতিক্রম করেছে বলে জানিয়েছে সাইক্লোন প্রিপারনেস প্রোগ্রাম। এসময় বাতাসের গতি বেশি থাকায় বিভিন্ন এলাকায় ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। গাছ ভেঙ্গে পড়ায় বন্ধ রয়েছে বিভিন্ন এলাকায় সড়ক যোগাযোগ। পানির চাপে পাথরঘাটা, কাকচিরাসহ বিভিন্ন এলাকায় বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে যাওয়ায় পানিতে তলিয়ে গেছে বেশ কিছু গ্রাম। উপকূলীয় এলাকা থেকে গ্রামবাসীদের সরিয়ে আশ্রয়কেন্দ্রে নেয়া হয়েছে।

খুলনা: খুলনা অঞ্চলে সকাল থেকে প্রচুর বৃষ্টি পাশাপাশি বইছে দমকা হাওয়া। উত্তাল রয়েছে পশুর নদী। মংলাবন্দরে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত জারি করেছে বন্দর কর্তৃপক্ষ। ৩০টি সাইক্লোন শেল্টারের পাশাপাশি প্রস্তুত রয়েছে ৮টি মেডিকেল টিম।

ফেনী: ফেনী: ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুর প্রভাবে ফেনীর সমুদ্র উপকূলীয় নদ-নদীগুলোতে ৬ থেকে ৭ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের সৃষ্টি হয়। এতে জোয়ারের পানিতে ঢুকে পড়ে লোকালয়ে। প্লাবিত হয় ঘরবাড়িসহ বিস্তীর্ণ এলাকার ফসলি জমি। এ সময় গবাদি পশু নিয়ে লোকজন নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য ছুটতে থাকেন।

n1

পটুয়াখালী: পটুয়াখালীতে ঘূর্ণিঝড়ে বেশ কিছু বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। এ সময় একজন নিহত এবং অন্তত ২ জন আহত হয়েছেন। ভোর থেকে মুষলধারে বৃষ্টিপাত হওয়ায় স্থবির হয়ে পড়েছে জনজীবন। যেকোনো ধরনের পরিস্থিতি মোকাবেলায় সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে বন্দর কর্তৃপক্ষ ও জেলা প্রশাসন।

নোয়াখালী: ঘূর্ণিঝড়র রোয়ানুর প্রভাবে নোয়াখালীর হাতিয়া, সুবর্ণর ও কোম্পানিগঞ্জের উপকূলীয় নদ-নদীতে ৪ থেকে ৫ ফুট উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের সৃষ্টি হয়। এতে এসব উপজেলার বেশ কয়েকটি ইউনিয়ন প্লাবিত হওয়ায় পানি বন্দি হয়ে পড়েছে মানুষজন।

n3

এদিকে, সন্ধ্যা ৬টা পর চট্টগ্রামের মেঘনার মোহনা, সন্দীপ, হাতিয়া কুতুবদিয়া, ফেনী ও নোয়াখালীর জেলার ওপর দিয়ে ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু স্পর্শ করে বেড়িয়ে যাবে। শনিবার দুপুরে আবহাওয়া অধিদপ্তরে পরিচালক শামসুদ্দিন আহমেদ ব্রিফিংয়ে একথা জানান। এসময় তিনি আরো জানান, ঘূর্ণিঝড়টি ঘণ্টায় ১৫ থেকে ২০ কিলোমিটার গতিতে অবস্থান পরিবর্তন করছে।

এছাড়া ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুর প্রভাবে বরিশাল, ঝালকাঠি ও বাগেরহাটসহ উপকূলীয় জেলাগুলোতে তীব্র ঝড়, বৃষ্টিপাত ও জলোচ্ছ্বাসে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

বন্ধ ফেরিসহ সব ধরনের নৌযান চলাচল

এদিকে, বৈরি আবহাওয়ার কারণে বন্ধ রয়েছে শিমুলিয়া-কাওড়াকান্দি নৌ-রুটের ফেরিসহ সবধরনের নৌযান চলাচল। বিআইডব্লিউটিএ জানায়, দুর্ঘটনা এড়াতে সকাল থেকে ফেরি, লঞ্চ ও স্পিডবোট চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। এতে ঘাটের দু’পাশে আটকা পড়েছে অর্ধ শতাধিক যাত্রীবাহী বাসসহ ২ শতাধিক যানবাহন। চরম ভোগান্তিতে রয়েছেন যাত্রী ও চালকরা। ৬টি ফেরিতে গাড়ি লোড করা হলেও প্রবল বাতাসের কারণে তা ছেড়ে যায়নি।

Check Also

হায়রে নিষ্ঠুর মানুষ হায়রে নিষ্ঠুর সমাজ!! শিশুকে জীবন্ত কবর দেয়ার পরেও কিভাবে বেচে যায় দেখুন (ভিডিও)

হায়রে নিষ্ঠুর মানুষ হায়রে নিষ্ঠুর সমাজ!! শিশুকে জীবন্ত কবর দেয়ার পরেও কিভাবে বেচে যায় দেখুন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

[X]
Loading...